ঢাকা ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভুয়া নিয়োগের অভিযোগ

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ

ঠাকুরগাঁওয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ‘ইমএক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেড’র অধীনে আউটসোর্সিং দপ্তরি কাম প্রহরীর অস্থায়ী পদে ভুয়া নিয়োগপত্র দেয়া হয়েছে। ভুয়া নিয়োগ দিয়ে টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক রবিন চন্দ্র বর্মনের বিরুদ্ধে। তিনি বর্তমানে আরাজি দক্ষিণ বঠিনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন।

ভূয়া নিয়োগের এর মাধ্যমে ঢোলারহাট ইউনিয়নের ভূপাল চন্দ্রর ছেলে গৌরাঙ্গ চন্দ্রের কাছে ৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা এবং সদর উপজেলার আরাজি কৃষ্ণপুর এলাকার আরাজি শিংপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদেসহ আরও অসংখ্য চাকরি প্রার্থীর কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

 

ভুক্তভোগী গৌরাঙ্গ চন্দ্র বর্মনের পিতা ভূপাল চন্দ্র বর্মন বলেন, রবিন চন্দ্র বর্মন আমার ছেলের চাকরি নিয়ে দিবে বলে ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকায় আমার সঙ্গে চুক্তি করে। আমি বিভিন্ন সময় অগ্রিম ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা তাকে দেই। তিনি বলেন ২০১৯ সাল থেকে আমাকে হয়রানি করছেন শিক্ষক, এরপর সে একটি ভূয়া নিয়োগ পত্র হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলেন এটা ডিসি স্যার হতে রিসিভ করা আর কিছু দিনের মধ্যে যোগদান করতে পারবে কিন্তু এখন যোগদান তো দুরের কথা শুনতেছি এটা ভূয়া নিয়োগ।
এদিকে আরেক ভুক্তভোগী তুহিন ইসলাম বলেন আমার দুলাই মতিউর এর সাথে রবিন চন্দ্র বর্মন যোগাযোগ করলে তিনিও লক্ষধীক টাকা অগ্রীম দেন বিনিময়ে একটি ভূয়া নিয়োগ পত্র হাতে দেন।

টাকা নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করে প্রধান শিক্ষক রবিন চন্দ্র বর্মন বলেন চাকরি হবে তবে সময় লাগবে তিনি বলেন করোনার সময় আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে সার্কুলার দেওয়া হয়েছে। আপনি কিভাবে নিয়োগ দিচ্ছেন জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন
ইমএক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেড’র নিয়োগ পত্র জেলা প্রশাসক এর মাধ্যমে যোগদান করবে চাকরি প্রার্থীরা।

ইমএক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেড’র কো- অর্ডিনেটর পরিচয় দানাকারী নজরুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন দেশের যে সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম- প্রহরী পদ শূন্য রয়েছে এইসব প্রতিষ্ঠানে আমর প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দিবে বলে তিনি জানান তবে নিয়োগের ক্ষেত্রে অর্থ লেনদেনের বিষয় তিনি এড়িয়ে যান।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার রুনা লায়লা বলেন, আমার অধীনস্থ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম- প্রহরী পদে নিয়োগ দিবে অথচ আমি এবং আমার দপ্তর জানে না। তিনি বলেন প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার কে? এগুলো সব ভূয়া।

ঠাকুরগাঁও জেলা শিক্ষা অফিসার খন্দকার মনছুর রহমান বলেন এরকম কোন নিয়োগ বিষয় আমি জানি না। যদি কেউ এভাবে বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগ দিয়ে থাকেন তাহলে এসব ভূয়া নিয়োগ।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

পবিত্র ঈদ উল আযহা উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার নুর উস সাদিক চৌধুরী 

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভুয়া নিয়োগের অভিযোগ

আপডেট : ০৮:০৬:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ

ঠাকুরগাঁওয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ‘ইমএক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেড’র অধীনে আউটসোর্সিং দপ্তরি কাম প্রহরীর অস্থায়ী পদে ভুয়া নিয়োগপত্র দেয়া হয়েছে। ভুয়া নিয়োগ দিয়ে টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক রবিন চন্দ্র বর্মনের বিরুদ্ধে। তিনি বর্তমানে আরাজি দক্ষিণ বঠিনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন।

ভূয়া নিয়োগের এর মাধ্যমে ঢোলারহাট ইউনিয়নের ভূপাল চন্দ্রর ছেলে গৌরাঙ্গ চন্দ্রের কাছে ৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা এবং সদর উপজেলার আরাজি কৃষ্ণপুর এলাকার আরাজি শিংপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদেসহ আরও অসংখ্য চাকরি প্রার্থীর কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

 

ভুক্তভোগী গৌরাঙ্গ চন্দ্র বর্মনের পিতা ভূপাল চন্দ্র বর্মন বলেন, রবিন চন্দ্র বর্মন আমার ছেলের চাকরি নিয়ে দিবে বলে ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকায় আমার সঙ্গে চুক্তি করে। আমি বিভিন্ন সময় অগ্রিম ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা তাকে দেই। তিনি বলেন ২০১৯ সাল থেকে আমাকে হয়রানি করছেন শিক্ষক, এরপর সে একটি ভূয়া নিয়োগ পত্র হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলেন এটা ডিসি স্যার হতে রিসিভ করা আর কিছু দিনের মধ্যে যোগদান করতে পারবে কিন্তু এখন যোগদান তো দুরের কথা শুনতেছি এটা ভূয়া নিয়োগ।
এদিকে আরেক ভুক্তভোগী তুহিন ইসলাম বলেন আমার দুলাই মতিউর এর সাথে রবিন চন্দ্র বর্মন যোগাযোগ করলে তিনিও লক্ষধীক টাকা অগ্রীম দেন বিনিময়ে একটি ভূয়া নিয়োগ পত্র হাতে দেন।

টাকা নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করে প্রধান শিক্ষক রবিন চন্দ্র বর্মন বলেন চাকরি হবে তবে সময় লাগবে তিনি বলেন করোনার সময় আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে সার্কুলার দেওয়া হয়েছে। আপনি কিভাবে নিয়োগ দিচ্ছেন জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন
ইমএক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেড’র নিয়োগ পত্র জেলা প্রশাসক এর মাধ্যমে যোগদান করবে চাকরি প্রার্থীরা।

ইমএক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেড’র কো- অর্ডিনেটর পরিচয় দানাকারী নজরুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন দেশের যে সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম- প্রহরী পদ শূন্য রয়েছে এইসব প্রতিষ্ঠানে আমর প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দিবে বলে তিনি জানান তবে নিয়োগের ক্ষেত্রে অর্থ লেনদেনের বিষয় তিনি এড়িয়ে যান।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার রুনা লায়লা বলেন, আমার অধীনস্থ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম- প্রহরী পদে নিয়োগ দিবে অথচ আমি এবং আমার দপ্তর জানে না। তিনি বলেন প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার কে? এগুলো সব ভূয়া।

ঠাকুরগাঁও জেলা শিক্ষা অফিসার খন্দকার মনছুর রহমান বলেন এরকম কোন নিয়োগ বিষয় আমি জানি না। যদি কেউ এভাবে বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগ দিয়ে থাকেন তাহলে এসব ভূয়া নিয়োগ।