ঢাকা ০৭:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কায়সারুল হক জুয়েলকে ফের চেয়ারম্যান হিসেবে চান সদর উপজেলাবাসী

এম এ সাত্তার

কক্সবাজার সদর উপজেলা থেকে কায়সারুল হক জুয়েলকে ফের উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় উপজেলাবাসী। তিনি আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবারো চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছেন এমন জানাজানির পর আমজনতার মুখে মুখে জুয়েল।

এ বিষয়ে সংবাদ সংগ্রহকালে জানা যায়, আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জনগণের প্রার্থী হিসেবে তরুণ রাজনীতিবিদ জুয়েলকেই পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় ভোটাররা। স্থানীয় তরুণ প্রজন্মের নেতা-কর্মীদের সাথে আলাপকালে এমন তথ্য উঠে এসেছে। তাদের মতে তরুণ এই নেতা জুয়েল ইতিমধ্যে দলমত নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষের আস্থার প্রতীক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যান জুয়েল এর পারিবারিক এক ঘনিষ্টজন আবারো প্রার্থী হচ্ছেন বলে জানান। তিনি বলেন, গতবারের সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে স্থানীয় রাজনীতিতে নিজেকে টেনে নিয়ে এসেছেন জনপ্রিয়তার শীর্ষে। তাই নিজ দলীয় কর্মী সমর্থকসহ এলাকাবাসীর অধিক আগ্রহের কারণেই চেয়ারম্যান জুয়েল মনস্থির করেন আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হবেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, আওয়ামী লীগ-যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও তাদের সহযোগী সংগঠনের নতুন প্রজন্মের নেতা-কর্মীরা জানিয়েছেন, এলাকাবাসীর অত্যন্ত আস্থাভাজন ও তাদের সুখ-দুঃখের অংশীদার হিসেবে কায়সারুল হক জুয়েলকেই আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায়। এলাকার উঠতি ভোটারদের মতে জুয়েল আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক হবার পর থেকে স্থানীয় রাজনীতিকে যেভাবে সুসংগঠিত করে সাজিয়েছেন এবং নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জন করেছেন সেখানে জুয়েলের বিকল্প কোন প্রার্থী নেই বললেই চলে।

এ ব্যাপারে ভারুয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা কফিল উদ্দিন কফিল বলেন, কায়সারুল হক জুয়েল একজন পরিপুর্ণ রাজনীতিবিদ। তরুণ এই রাজনীতিক নেতা জুয়েলই হলেন জেলার নির্যাতিত নিপীড়িত সাধারণ মানুষের আশা-ভরসা ও শেষ আশ্রয়স্থল। আর দিন-রাত ২৪ ঘন্টা রাজনীতি ও নাগরিক সেবার পেছনে ব্যয় করে আসছেন চেয়ারম্যান জুয়েল। এমনকি স্থানীয় মানুষ তাকে সব সময়েই কাছে পায়। তাই স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা-কর্মীগণ এমন একজন কর্মীবান্ধব নেতাকেই আবারো উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার।

পিএমখালী ইউনিয়ন ১০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মানবাধিকার কর্মী ও সমাজপতি আমির হামজা বলেন, একজন যোগ্যনেতা হিসেবে জনগণের সাথে রয়েছে জুয়েলের যথেষ্ট সম্পৃক্ততা। সমাজ ও রাষ্ট্র বিরোধী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে তিনি সবসময়ই সোচ্ছার ভুমিকা রেখে আসছেন। যে কারণে আমাদের এলাকার সাধারণ জনগণই তাকে আবারো উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে আগ্রহী।

পৌরআওয়ামী লীগের নেতা মমতাজ আহমেদ রুবেল বলেন, কক্সবাজার জেলা জুড়ে কায়সারুল হক জুয়েল ও তাঁর পরিবারের রয়েছে আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা। মোজাম্মেল চেয়ারম্যানকে চিনেন না, জানেন না এমন কেউ আছেন বলে মনে হয় না। যে কেউ সমস্যার সম্মুখীন হলে ছুটে যেতেন জুয়েলের পিতা মোজাম্মেল চেয়ারম্যানের কাছে। এমনকি সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা পর্যন্ত তাঁর কাছে যেতেন নানা সমস্যার সমাধানে। তিনি (মোজাম্মেল) দল মত, ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি ছিলেন।আর এখন পিতার অবর্তমানে কক্সবাজারের মানুষ চেয়ারম্যান জুয়েলসহ তার ভাইদেরকেই সুখে দুঃখে কাছে পায়। কাজেই কায়সারুল হক জুয়েলকেই ফের উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চায়।

কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা নাজিমুদ্দিন বলেন, পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ জুয়েল ভাই হচ্ছেন মাটি ও মানুষের নেতা। একদম তৃণমূল থেকে কিভাবে দলকে সু—সংগঠিত রাখতে হয়। কিভাবে একজন নেতা—কর্মীর মন জয় করা যায় এসব গুণাবলী তার মধ্যে বিদ্যমান আছে। এলাকাবাসী তাদের নেতা হিসেবে ঘুরেফিরে তাকেই সবসময় কাছে পায়। তাই তার প্রতি এলাকার মানুষের গভীর আস্থা তৈরী হয়েছে। এ আস্থা থেকেই এলাকাবাসী তাকে পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চায়।

আসন্ন সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হবেন কিনা জানতে চাইলে, কায়সারুল হক জুয়েল বলেন, এলাকার জনসাধারণ ও নেতাকর্মিরা আবারও প্রার্থী হওয়ার জন্য অনুরোধ করে যাচ্ছেন।
তাই পরিবেশ পরিস্থিতি সবকিছু ঠিক থাকলে, ভোটাররা চাইলে আল্লাহর রহমতে জনসাধারণের ভালোবাসায় আমি এবারও প্রার্থী হবার বিষয়ে শতপার্সেন্ট আশাবাদী। আমিও আমার শ্রদ্ধেয় পিতার মতো জনগণের সেবার মধ্যে নিজেকে নিয়োজিত থাকতে চাই সারাজীবন, ইনশাআল্লাহ।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

পুকুরে ধরা পড়ল রুপালি ইলিশ

কায়সারুল হক জুয়েলকে ফের চেয়ারম্যান হিসেবে চান সদর উপজেলাবাসী

আপডেট : ০২:৩৪:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪

এম এ সাত্তার

কক্সবাজার সদর উপজেলা থেকে কায়সারুল হক জুয়েলকে ফের উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় উপজেলাবাসী। তিনি আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবারো চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছেন এমন জানাজানির পর আমজনতার মুখে মুখে জুয়েল।

এ বিষয়ে সংবাদ সংগ্রহকালে জানা যায়, আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জনগণের প্রার্থী হিসেবে তরুণ রাজনীতিবিদ জুয়েলকেই পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় ভোটাররা। স্থানীয় তরুণ প্রজন্মের নেতা-কর্মীদের সাথে আলাপকালে এমন তথ্য উঠে এসেছে। তাদের মতে তরুণ এই নেতা জুয়েল ইতিমধ্যে দলমত নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষের আস্থার প্রতীক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যান জুয়েল এর পারিবারিক এক ঘনিষ্টজন আবারো প্রার্থী হচ্ছেন বলে জানান। তিনি বলেন, গতবারের সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে স্থানীয় রাজনীতিতে নিজেকে টেনে নিয়ে এসেছেন জনপ্রিয়তার শীর্ষে। তাই নিজ দলীয় কর্মী সমর্থকসহ এলাকাবাসীর অধিক আগ্রহের কারণেই চেয়ারম্যান জুয়েল মনস্থির করেন আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হবেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, আওয়ামী লীগ-যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও তাদের সহযোগী সংগঠনের নতুন প্রজন্মের নেতা-কর্মীরা জানিয়েছেন, এলাকাবাসীর অত্যন্ত আস্থাভাজন ও তাদের সুখ-দুঃখের অংশীদার হিসেবে কায়সারুল হক জুয়েলকেই আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায়। এলাকার উঠতি ভোটারদের মতে জুয়েল আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক হবার পর থেকে স্থানীয় রাজনীতিকে যেভাবে সুসংগঠিত করে সাজিয়েছেন এবং নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জন করেছেন সেখানে জুয়েলের বিকল্প কোন প্রার্থী নেই বললেই চলে।

এ ব্যাপারে ভারুয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা কফিল উদ্দিন কফিল বলেন, কায়সারুল হক জুয়েল একজন পরিপুর্ণ রাজনীতিবিদ। তরুণ এই রাজনীতিক নেতা জুয়েলই হলেন জেলার নির্যাতিত নিপীড়িত সাধারণ মানুষের আশা-ভরসা ও শেষ আশ্রয়স্থল। আর দিন-রাত ২৪ ঘন্টা রাজনীতি ও নাগরিক সেবার পেছনে ব্যয় করে আসছেন চেয়ারম্যান জুয়েল। এমনকি স্থানীয় মানুষ তাকে সব সময়েই কাছে পায়। তাই স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা-কর্মীগণ এমন একজন কর্মীবান্ধব নেতাকেই আবারো উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার।

পিএমখালী ইউনিয়ন ১০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মানবাধিকার কর্মী ও সমাজপতি আমির হামজা বলেন, একজন যোগ্যনেতা হিসেবে জনগণের সাথে রয়েছে জুয়েলের যথেষ্ট সম্পৃক্ততা। সমাজ ও রাষ্ট্র বিরোধী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে তিনি সবসময়ই সোচ্ছার ভুমিকা রেখে আসছেন। যে কারণে আমাদের এলাকার সাধারণ জনগণই তাকে আবারো উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে আগ্রহী।

পৌরআওয়ামী লীগের নেতা মমতাজ আহমেদ রুবেল বলেন, কক্সবাজার জেলা জুড়ে কায়সারুল হক জুয়েল ও তাঁর পরিবারের রয়েছে আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা। মোজাম্মেল চেয়ারম্যানকে চিনেন না, জানেন না এমন কেউ আছেন বলে মনে হয় না। যে কেউ সমস্যার সম্মুখীন হলে ছুটে যেতেন জুয়েলের পিতা মোজাম্মেল চেয়ারম্যানের কাছে। এমনকি সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা পর্যন্ত তাঁর কাছে যেতেন নানা সমস্যার সমাধানে। তিনি (মোজাম্মেল) দল মত, ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি ছিলেন।আর এখন পিতার অবর্তমানে কক্সবাজারের মানুষ চেয়ারম্যান জুয়েলসহ তার ভাইদেরকেই সুখে দুঃখে কাছে পায়। কাজেই কায়সারুল হক জুয়েলকেই ফের উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চায়।

কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা নাজিমুদ্দিন বলেন, পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ জুয়েল ভাই হচ্ছেন মাটি ও মানুষের নেতা। একদম তৃণমূল থেকে কিভাবে দলকে সু—সংগঠিত রাখতে হয়। কিভাবে একজন নেতা—কর্মীর মন জয় করা যায় এসব গুণাবলী তার মধ্যে বিদ্যমান আছে। এলাকাবাসী তাদের নেতা হিসেবে ঘুরেফিরে তাকেই সবসময় কাছে পায়। তাই তার প্রতি এলাকার মানুষের গভীর আস্থা তৈরী হয়েছে। এ আস্থা থেকেই এলাকাবাসী তাকে পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চায়।

আসন্ন সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হবেন কিনা জানতে চাইলে, কায়সারুল হক জুয়েল বলেন, এলাকার জনসাধারণ ও নেতাকর্মিরা আবারও প্রার্থী হওয়ার জন্য অনুরোধ করে যাচ্ছেন।
তাই পরিবেশ পরিস্থিতি সবকিছু ঠিক থাকলে, ভোটাররা চাইলে আল্লাহর রহমতে জনসাধারণের ভালোবাসায় আমি এবারও প্রার্থী হবার বিষয়ে শতপার্সেন্ট আশাবাদী। আমিও আমার শ্রদ্ধেয় পিতার মতো জনগণের সেবার মধ্যে নিজেকে নিয়োজিত থাকতে চাই সারাজীবন, ইনশাআল্লাহ।