ঢাকা ০৫:১০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মাহাবুবুলের জানাজায়ে হাজারো মানুষের ঢল

হাজী জাহিদ, নরসিংদী

নরসিংদী সদর উপজেলার মেহেরপাড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হাসানের ময়না তদন্ত শেষে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।
বুধবার (২৯ মে) উপজেলার মেহেরপাড়া খালপাড়

শাহী ঈদগাহ মাঠে অশ্রুসিক্ত নয়নে হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে এ জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজায় অংশ নেন নরসিংদী সদর-১ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু (বীর প্রতীক) এমপি, নরসিংদী-২ (পলাশ) আসনের সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ারুল আশরাফ দিলীপ এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম তালেব হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মনির হোসেন ভূঁইয়া, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার সহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দ সহ হাজারো মানুষ। জানাজা পূর্বে নরসিংদী-১ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম হিরো তার বক্তব্যে বলেন, নরসিংদীবাসী সন্ত্রাসীদের কাছে জিম্মি। মাহবুবুল হত্যা একদিনে হয় নাই। দীর্ঘদিনের পরিকল্পনা। এটা প্রশাসনের জানার কথা ছিলো। প্রশাসন সহযোগিতা চায়, আমরা প্রশাসনকে সর্বদিক দিয়ে সহযোগিতা করবো। কিন্তু আসামী গ্রেপ্তার ও অনুসন্ধানের নামে দীর্ঘায়িত করা যাবে না। একদিন-দুইদিন-সাতদিনের সময় দিলাম। কোন তালবাহানা করা চলবে না। বিচার-বিচার-বিচার চাই। মাহবুবুলের হত্যাকারী ও পরিকল্পনাকারীদের বিচার চাই।
নরসিংদী-২ আসনের এমপি বলেন, মাহাবুবুল ছিলেন আমার সন্তানের মত। সে একজন দক্ষ সংগঠক ও দলের জন্য নিবেদিত প্রান ছিলেন। আমরা একজন নেতা হারালাম। তিনি আরও বলেন, মাহবুবুলের মত নেতা আর আগামী ৫০ বছরে মেহেরপাড়ায় জন্ম হবে না। আমি তার হত্যার বিচার চাই।
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনির হোসেন বলেন, আজ আমরা একজন জনপ্রিয় নেতাকে হারালাম। গত ৯০ দিনে এ জেলায় ৩ জন জনপ্রিয় ব্যক্তিকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাও আবার দিনের বেলায়। আমি আপনাদের ভোটে নির্বাচিত চেয়ারম্যান। আমি একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে আমার কি গ্যারান্টি আছে যে আমি এমনভাবে লাশ হবো না। আমিও নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। কয়েকদিন ধরে কিছু কুচক্রী মহল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। আমি প্রশাসনকে বলবো দ্রুত অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হোক। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম তালেব হোসেন জেলা পুলিশের উদ্দেশ্যে বলেন, বন্ধ করুন এ সব হত্যাকান্ড। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে ১৬৪ করান। নয়তো বা সাধারণ জনগন আপনাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।
জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
উল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার (২৮ মে) রাত সাড়ে ১২টায় উপজেলা মেহেরপাড়ার ভগিরথপুর শাহী ঈদগাহ (ঢাকা-সিলেট) মহাসড়কের পাশে মাহবুবুল হাসানের ব্যক্তিগত অফিস থেকে বাসায় ফিরছিলেন। আগে থেকে উৎপেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তাকে প্রথমে গুলি করে, পরে কুপিয়ে হত্যা করেন। এসময় মাহবুবুলের সহযোগী পাপ্পু ও ফরহাদ গুলিবিদ্ধ হয়ে আশংকা অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

ঠাকুরগাঁওয়ে ৫ লাখ টাকা কুড়িয়ে পেয়ে মাইকিং করে ভাইরাল হওয়া সৌরভ গ্রেফতার

মাহাবুবুলের জানাজায়ে হাজারো মানুষের ঢল

আপডেট : ০৭:৫০:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪

হাজী জাহিদ, নরসিংদী

নরসিংদী সদর উপজেলার মেহেরপাড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হাসানের ময়না তদন্ত শেষে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।
বুধবার (২৯ মে) উপজেলার মেহেরপাড়া খালপাড়

শাহী ঈদগাহ মাঠে অশ্রুসিক্ত নয়নে হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে এ জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজায় অংশ নেন নরসিংদী সদর-১ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু (বীর প্রতীক) এমপি, নরসিংদী-২ (পলাশ) আসনের সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ারুল আশরাফ দিলীপ এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম তালেব হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মনির হোসেন ভূঁইয়া, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার সহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দ সহ হাজারো মানুষ। জানাজা পূর্বে নরসিংদী-১ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম হিরো তার বক্তব্যে বলেন, নরসিংদীবাসী সন্ত্রাসীদের কাছে জিম্মি। মাহবুবুল হত্যা একদিনে হয় নাই। দীর্ঘদিনের পরিকল্পনা। এটা প্রশাসনের জানার কথা ছিলো। প্রশাসন সহযোগিতা চায়, আমরা প্রশাসনকে সর্বদিক দিয়ে সহযোগিতা করবো। কিন্তু আসামী গ্রেপ্তার ও অনুসন্ধানের নামে দীর্ঘায়িত করা যাবে না। একদিন-দুইদিন-সাতদিনের সময় দিলাম। কোন তালবাহানা করা চলবে না। বিচার-বিচার-বিচার চাই। মাহবুবুলের হত্যাকারী ও পরিকল্পনাকারীদের বিচার চাই।
নরসিংদী-২ আসনের এমপি বলেন, মাহাবুবুল ছিলেন আমার সন্তানের মত। সে একজন দক্ষ সংগঠক ও দলের জন্য নিবেদিত প্রান ছিলেন। আমরা একজন নেতা হারালাম। তিনি আরও বলেন, মাহবুবুলের মত নেতা আর আগামী ৫০ বছরে মেহেরপাড়ায় জন্ম হবে না। আমি তার হত্যার বিচার চাই।
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনির হোসেন বলেন, আজ আমরা একজন জনপ্রিয় নেতাকে হারালাম। গত ৯০ দিনে এ জেলায় ৩ জন জনপ্রিয় ব্যক্তিকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাও আবার দিনের বেলায়। আমি আপনাদের ভোটে নির্বাচিত চেয়ারম্যান। আমি একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে আমার কি গ্যারান্টি আছে যে আমি এমনভাবে লাশ হবো না। আমিও নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। কয়েকদিন ধরে কিছু কুচক্রী মহল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। আমি প্রশাসনকে বলবো দ্রুত অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হোক। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম তালেব হোসেন জেলা পুলিশের উদ্দেশ্যে বলেন, বন্ধ করুন এ সব হত্যাকান্ড। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে ১৬৪ করান। নয়তো বা সাধারণ জনগন আপনাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।
জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
উল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার (২৮ মে) রাত সাড়ে ১২টায় উপজেলা মেহেরপাড়ার ভগিরথপুর শাহী ঈদগাহ (ঢাকা-সিলেট) মহাসড়কের পাশে মাহবুবুল হাসানের ব্যক্তিগত অফিস থেকে বাসায় ফিরছিলেন। আগে থেকে উৎপেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তাকে প্রথমে গুলি করে, পরে কুপিয়ে হত্যা করেন। এসময় মাহবুবুলের সহযোগী পাপ্পু ও ফরহাদ গুলিবিদ্ধ হয়ে আশংকা অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।