ঢাকা ০৭:৩৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কক্সবাজারে দাখিল ‘৯৫’ বন্ধুদের মিলনমেলা অনুষ্ঠিত

এম এ সাত্তার: কক্সবাজার প্রতিনিধি

মেতে উঠি আনন্দে, ফিরে যাই শৈশবে। আমরা ছিলাম, আছি, থাকবো। কক্সবাজার সদর উপজেলার কয়েকটি মাদ্রাসার দাখিল/এসএসসি ‘৯৫ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের এক মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়।

শুক্রবার (২৯ ডিসেম্বর) কক্সবাজার-শামলাপুর- টেকনাফ পিকনিক স্পটে আনন্দ ভ্রমণের মাধ্যমে এ মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়।

ব্যস্ত জীবনে সহপাঠী বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হওয়াটা আজকাল কারো হয়ে ওঠে না। ঠিক সেই কথা মাথায় রেখে ছাত্র জীবনে বন্ধুদের সঙ্গে যাতে একে অপরের দেখা হয়, হোয়াটএ্যপ গ্রুপের মাধ্যমে সে সুযোগ সৃষ্টি করে দেন ৯৫ ব্যাচের সহপাঠী আক্তার (প্রবাসী), জসিম, মঈন, আমিন, রেজাউল।

দীর্ঘদিন যোগাযোগ না থাকা ছোট বেলার বন্ধুদের পেয়ে অনেকেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। এ দীর্ঘ ২৭ বছরে দাখিল-৯৫ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা নানান পেশায় চলে গেছেন। এদের মধ্যে কেউ চিকিৎসক, প্রকৌশলী, আইনজীবী, সাংবাদিক, সরকারি কর্মকর্তা, সামরিক ও বেসামরিক অফিসার, কেউবা আবার শিক্ষক কিংবা ব্যবসায়ী, ঠিকাদার, কেউ প্রবাসী। কিন্তু বন্ধুত্বের বন্ধনে এক সাথে সবাই যেন এদিনকার একাকার হয়ে পড়েন। পরিচয় সবার যেন একটি আমরা সহপাঠী বন্ধু।

কক্সবাজার থেকে মাইক্রোবাসে করে সহপাঠী বন্ধুরা যাত্রা করেন কক্সবাজার- শামলাপুর- টেকনাফ পিকনিক স্পটে। সকাল ১১ টায় সেখানে উপস্থিত হয়ে সবাই যেন ২৭ বছর আগের ছাত্র জীবনের স্মৃতিকাতর হয়ে ওঠেন। এদিন বন্ধুদের মিলনমেলা সকাল ১১টা থেকে শুরু হয়ে চলে সন্ধ্যা অবধি। অনুষ্ঠানটি ভলান্টিয়ার সম্মাননা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, র‌্যাফেল ড্র, সুইমিংপুলে সাঁতার কাটার পাশাপাশি গান, নাচ, আবৃত্তি, সংস্কৃতি অনুষ্ঠানের সমন্বয়ে এক ব্যতিক্রমী আলোড়নের সৃষ্টি করে।

সৃজনশীল নানান আয়োজন শেষে মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতির শেষে খেলাধুলা, আবৃত্তি-গানের মাধ্যমে বন্ধুরা একে অপরের সঙ্গে আনন্দে মেতে ওঠে।অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করা প্রবাসী আলহাজ্ব আক্তার হোসাইন বলেন, আমরা বিগত ২৭ বছর আগে দাখিল পাশের পর এতদিন বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিলাম। এই অনুষ্ঠানে সব বন্ধুকে এক সঙ্গে পেয়ে আবেগাপ্লুত এবং আনন্দিত।

অনুষ্ঠান সম্পর্কে ৯৫’ ব্যাচের শিক্ষার্থী গ্রুপ এডমিন শিক্ষক মঈন উদ্দিন ও এনজিও কর্মী জসিম উদ্দিন বলেন, ৯৫ ব্যাচের সকল বন্ধুরা একসাথে হওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে আমরা কয়েকজন পরামর্শ ফেসবুক হোয়াটএপ গ্রুপ খুলি। পরে একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও কখনোই সরাসরি এক হতে পারিনি। তাই আমাদের আজকের এই মিলন মেলা ও আনন্দ ভ্রমনের আয়োজন। পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে আমাদের ছাত্রজীবনের ৯৫ ব্যাচের বন্ধুরা যাতে একে অপরের পাশে দাঁড়াতে পারি এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

দুপুরের খাবার শেষে শুরু হয় স্মৃতিচারণ, গান, নাচ, কবিতা, কৌতুক আড্ডা। এসময় বয়সের ভার ভেঙে যেন সবাই কিশোর-তরুণ হয়ে ওঠেন। শৈশবের স্মৃতিতে কেউ চোখ ভেজান কেউবা নেচে ওঠেন আপন মনে। খেলাধুলা, নাচ, গান, আড্ডা আর শৈশবের স্মৃতিচারণে কেটে যায় সারাদিন।এরপর একে অপরের সাথে মতবিনিময়ের মধ্য দিয়ে শেষ হয় ৯৫¹দাখিল ৯৫ ব্যাচ এর মিলনমেলা।এই স্মৃতিময় মিলনমেলা ও আনন্দ ভ্রমণ আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা করেন টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডে সৎ পরিচ্ছন্ন ও জনপ্রিয় মেম্বার মোক্তার আহমদ (সাবেক)।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

পুকুরে ধরা পড়ল রুপালি ইলিশ

কক্সবাজারে দাখিল ‘৯৫’ বন্ধুদের মিলনমেলা অনুষ্ঠিত

আপডেট : ০৯:০৯:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩

এম এ সাত্তার: কক্সবাজার প্রতিনিধি

মেতে উঠি আনন্দে, ফিরে যাই শৈশবে। আমরা ছিলাম, আছি, থাকবো। কক্সবাজার সদর উপজেলার কয়েকটি মাদ্রাসার দাখিল/এসএসসি ‘৯৫ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের এক মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়।

শুক্রবার (২৯ ডিসেম্বর) কক্সবাজার-শামলাপুর- টেকনাফ পিকনিক স্পটে আনন্দ ভ্রমণের মাধ্যমে এ মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়।

ব্যস্ত জীবনে সহপাঠী বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হওয়াটা আজকাল কারো হয়ে ওঠে না। ঠিক সেই কথা মাথায় রেখে ছাত্র জীবনে বন্ধুদের সঙ্গে যাতে একে অপরের দেখা হয়, হোয়াটএ্যপ গ্রুপের মাধ্যমে সে সুযোগ সৃষ্টি করে দেন ৯৫ ব্যাচের সহপাঠী আক্তার (প্রবাসী), জসিম, মঈন, আমিন, রেজাউল।

দীর্ঘদিন যোগাযোগ না থাকা ছোট বেলার বন্ধুদের পেয়ে অনেকেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। এ দীর্ঘ ২৭ বছরে দাখিল-৯৫ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা নানান পেশায় চলে গেছেন। এদের মধ্যে কেউ চিকিৎসক, প্রকৌশলী, আইনজীবী, সাংবাদিক, সরকারি কর্মকর্তা, সামরিক ও বেসামরিক অফিসার, কেউবা আবার শিক্ষক কিংবা ব্যবসায়ী, ঠিকাদার, কেউ প্রবাসী। কিন্তু বন্ধুত্বের বন্ধনে এক সাথে সবাই যেন এদিনকার একাকার হয়ে পড়েন। পরিচয় সবার যেন একটি আমরা সহপাঠী বন্ধু।

কক্সবাজার থেকে মাইক্রোবাসে করে সহপাঠী বন্ধুরা যাত্রা করেন কক্সবাজার- শামলাপুর- টেকনাফ পিকনিক স্পটে। সকাল ১১ টায় সেখানে উপস্থিত হয়ে সবাই যেন ২৭ বছর আগের ছাত্র জীবনের স্মৃতিকাতর হয়ে ওঠেন। এদিন বন্ধুদের মিলনমেলা সকাল ১১টা থেকে শুরু হয়ে চলে সন্ধ্যা অবধি। অনুষ্ঠানটি ভলান্টিয়ার সম্মাননা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, র‌্যাফেল ড্র, সুইমিংপুলে সাঁতার কাটার পাশাপাশি গান, নাচ, আবৃত্তি, সংস্কৃতি অনুষ্ঠানের সমন্বয়ে এক ব্যতিক্রমী আলোড়নের সৃষ্টি করে।

সৃজনশীল নানান আয়োজন শেষে মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতির শেষে খেলাধুলা, আবৃত্তি-গানের মাধ্যমে বন্ধুরা একে অপরের সঙ্গে আনন্দে মেতে ওঠে।অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করা প্রবাসী আলহাজ্ব আক্তার হোসাইন বলেন, আমরা বিগত ২৭ বছর আগে দাখিল পাশের পর এতদিন বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিলাম। এই অনুষ্ঠানে সব বন্ধুকে এক সঙ্গে পেয়ে আবেগাপ্লুত এবং আনন্দিত।

অনুষ্ঠান সম্পর্কে ৯৫’ ব্যাচের শিক্ষার্থী গ্রুপ এডমিন শিক্ষক মঈন উদ্দিন ও এনজিও কর্মী জসিম উদ্দিন বলেন, ৯৫ ব্যাচের সকল বন্ধুরা একসাথে হওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে আমরা কয়েকজন পরামর্শ ফেসবুক হোয়াটএপ গ্রুপ খুলি। পরে একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও কখনোই সরাসরি এক হতে পারিনি। তাই আমাদের আজকের এই মিলন মেলা ও আনন্দ ভ্রমনের আয়োজন। পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে আমাদের ছাত্রজীবনের ৯৫ ব্যাচের বন্ধুরা যাতে একে অপরের পাশে দাঁড়াতে পারি এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

দুপুরের খাবার শেষে শুরু হয় স্মৃতিচারণ, গান, নাচ, কবিতা, কৌতুক আড্ডা। এসময় বয়সের ভার ভেঙে যেন সবাই কিশোর-তরুণ হয়ে ওঠেন। শৈশবের স্মৃতিতে কেউ চোখ ভেজান কেউবা নেচে ওঠেন আপন মনে। খেলাধুলা, নাচ, গান, আড্ডা আর শৈশবের স্মৃতিচারণে কেটে যায় সারাদিন।এরপর একে অপরের সাথে মতবিনিময়ের মধ্য দিয়ে শেষ হয় ৯৫¹দাখিল ৯৫ ব্যাচ এর মিলনমেলা।এই স্মৃতিময় মিলনমেলা ও আনন্দ ভ্রমণ আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা করেন টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডে সৎ পরিচ্ছন্ন ও জনপ্রিয় মেম্বার মোক্তার আহমদ (সাবেক)।