ঢাকা ০৩:৫৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছাত্রীদের মাতৃস্নেহে আগলে রেখেছেন জবি ছাত্রী হল প্রভোস্ট

জবি প্রতিনিধি

ঈদুল ফিতরের দিন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) একমাত্র ছাত্রী হল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার ছাত্রীদের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন। হল প্রভোস্টকে ঈদ দিন কাছে পেয়ে আনন্দে উচ্ছ্বসিত হয়ে সুন্দর সময় কাটান ঈদের ছুটিতে হলে থাকা আবাসিক ছাত্রীরা।

জানা যায়, ইস্টার সানডে, শব-ই-কদর, জুমাতুল বিদা, ঈদ উল ফিতর ও বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে দীর্ঘ ১৭ দিনের ছুটি পায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তবে এই ছুটিতে খোলা থাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র ছাত্রীহল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল। এই ছুটিতে অনেকেই হলে অবস্থান করেছেন।

পরীক্ষা, পড়াশোনা, ঈদের ছুটিতে যাতায়াত অসুবিধা আর বিসিএস কিংবা চাকরির পরীক্ষার জন্য ছাত্রীরা অনেকেই হলে রয়ে গেছেন। এই ছুটিতে হলে প্রায় ২০-২৫ ছাত্রী ছিলেন।

ঈদের দিন হল প্রভোস্ট হলের মেয়েদের জন্য পোলাও, রোস্ট ও সেমাই রান্না করে নিয়ে এসেছেন। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ছাত্রীদের সঙ্গে হলে সময় কাটিয়েছেন। তাদের সাথে গল্প আড্ডায় মেতে ছিলেন হল প্রভোস্ট। সাথে ছিলেন হাউজ টিউটর ড. নিপা দেবনাথ। সব মেয়েদের হল প্রভোস্ট তার রুমের সামনে ডাকেন, গেস্ট রুমে সবার সাথে বসেন এবং তাদের খাবার খাওয়ান। সব মিলিয়ে একটি আনন্দমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

হলের আবাসিক ছাত্রীরা জানান, ঈদ উপলক্ষে শ্রদ্ধেয় প্রভোস্ট ম্যাম সহ সবার সাথে কাটানো মুহূর্তগুলো অনেক সুন্দর ছিলো। অশেষ কৃতজ্ঞতা মাননীয় উপাচার্য সাদেকা হালিম ম্যামকে, তাঁর আন্তরিক নির্দেশনার জন্য।

তারা আরও বলেন, আমাদের আরেকটি পরিবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র ছাত্রী হল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল। হলে এবারের ঈদের দিন আমাদের খুবই ভালো কেটেছে।

এ বিষয়ে হাউজ টিউটর ড. নিপা দেবনাথ বলেন, অনেকদিন পর অন্যরকম ভাবে ঈদ উদযাপন করলাম। আমাদের ছাত্রী হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার ম্যাডাম কে অসংখ্য ধন্যবাদ এতো সুন্দর করে সবকিছু ম্যানেজ করার জন্য। সবশেষে আমরা আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি আমাদের অভিভাবক মাননীয় উপাচার্য সাদেকা হালিম আপাকে। উঁনার অসাধারণ নির্দেশনা ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করার জন্য।

সার্বিক বিষয়ে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার বলেন, ঈদের দিন হলের ছাত্রীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছি। তারা আমার সন্তান। তাদের সাথে সময় কাটাতে পেরে অনেক ভালো লেগেছে। অশেষ কৃতজ্ঞতা মাননীয় উপাচার্য সাদেকা হালিম আপাকে তাঁর আন্তরিক নির্দেশনার জন্য।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

ঠাকুরগাঁওয়ে ভোটের মাঠের বীরযোদ্ধা অরুণাংশু দত্ত টিটো

ছাত্রীদের মাতৃস্নেহে আগলে রেখেছেন জবি ছাত্রী হল প্রভোস্ট

আপডেট : ০৭:৩৪:০০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

জবি প্রতিনিধি

ঈদুল ফিতরের দিন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) একমাত্র ছাত্রী হল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার ছাত্রীদের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন। হল প্রভোস্টকে ঈদ দিন কাছে পেয়ে আনন্দে উচ্ছ্বসিত হয়ে সুন্দর সময় কাটান ঈদের ছুটিতে হলে থাকা আবাসিক ছাত্রীরা।

জানা যায়, ইস্টার সানডে, শব-ই-কদর, জুমাতুল বিদা, ঈদ উল ফিতর ও বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে দীর্ঘ ১৭ দিনের ছুটি পায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তবে এই ছুটিতে খোলা থাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র ছাত্রীহল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল। এই ছুটিতে অনেকেই হলে অবস্থান করেছেন।

পরীক্ষা, পড়াশোনা, ঈদের ছুটিতে যাতায়াত অসুবিধা আর বিসিএস কিংবা চাকরির পরীক্ষার জন্য ছাত্রীরা অনেকেই হলে রয়ে গেছেন। এই ছুটিতে হলে প্রায় ২০-২৫ ছাত্রী ছিলেন।

ঈদের দিন হল প্রভোস্ট হলের মেয়েদের জন্য পোলাও, রোস্ট ও সেমাই রান্না করে নিয়ে এসেছেন। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ছাত্রীদের সঙ্গে হলে সময় কাটিয়েছেন। তাদের সাথে গল্প আড্ডায় মেতে ছিলেন হল প্রভোস্ট। সাথে ছিলেন হাউজ টিউটর ড. নিপা দেবনাথ। সব মেয়েদের হল প্রভোস্ট তার রুমের সামনে ডাকেন, গেস্ট রুমে সবার সাথে বসেন এবং তাদের খাবার খাওয়ান। সব মিলিয়ে একটি আনন্দমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

হলের আবাসিক ছাত্রীরা জানান, ঈদ উপলক্ষে শ্রদ্ধেয় প্রভোস্ট ম্যাম সহ সবার সাথে কাটানো মুহূর্তগুলো অনেক সুন্দর ছিলো। অশেষ কৃতজ্ঞতা মাননীয় উপাচার্য সাদেকা হালিম ম্যামকে, তাঁর আন্তরিক নির্দেশনার জন্য।

তারা আরও বলেন, আমাদের আরেকটি পরিবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র ছাত্রী হল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল। হলে এবারের ঈদের দিন আমাদের খুবই ভালো কেটেছে।

এ বিষয়ে হাউজ টিউটর ড. নিপা দেবনাথ বলেন, অনেকদিন পর অন্যরকম ভাবে ঈদ উদযাপন করলাম। আমাদের ছাত্রী হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার ম্যাডাম কে অসংখ্য ধন্যবাদ এতো সুন্দর করে সবকিছু ম্যানেজ করার জন্য। সবশেষে আমরা আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি আমাদের অভিভাবক মাননীয় উপাচার্য সাদেকা হালিম আপাকে। উঁনার অসাধারণ নির্দেশনা ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করার জন্য।

সার্বিক বিষয়ে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার বলেন, ঈদের দিন হলের ছাত্রীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছি। তারা আমার সন্তান। তাদের সাথে সময় কাটাতে পেরে অনেক ভালো লেগেছে। অশেষ কৃতজ্ঞতা মাননীয় উপাচার্য সাদেকা হালিম আপাকে তাঁর আন্তরিক নির্দেশনার জন্য।