ঢাকা ০৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার সাবেক সফল মেয়র বি এন পি ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন’র শুভেচ্ছা বাণী

নিজস্ব প্রতিবেদক ।।

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঠাকুরগাঁও বাসী সহ দেশবাসী কে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন ঠাকুরগাঁও পৌরসভার সাবেক সফল মেয়র বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বি এন পি ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন আজ এক বাণীতে বলেন, ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে সবাই যাতে ঈদের আনন্দ সমানভাবে উপভোগ করতে পারে, সেজন্য মানবতার মুক্তির দিশারি হিসেবে ইসলামের মর্মার্থ ও অন্তর্নিহিত তাৎপর্য দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ৃক, ভরে উঠুক শান্তি আর সৌহার্দ্যৈ পবিত্র ঈদুল ফিতরে আমার এ প্রত্যাশা।

বাণীতে মির্জা ফয়সল আমীন আরো বলেন, ঈদুল ফিতর মুসলমানদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব। মাসব্যাপী সিয়াম সাধনা ও সংযম পালনের পর অপার খুশি আর আনন্দের বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে আসে পবিত্র ঈদুল ফিতর। এ আনন্দ ছড়িয়ে পড়ে সবার মাঝে, গ্রামগঞ্জে, সারা বাংলায়, সারা বিশ্বে। এদিন সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ এক কাতারে শামিল হন এবং ঈদের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নেন। ঈদ সবার মধ্যে গড়ে তোলে সৌহার্দ্য সম্প্রীতি আর ঐক্যের বন্ধন। ঈদুল ফিতরের শিক্ষা সকলের মাঝে ছড়িয়ে পড়ুক, গড়ে উঠুক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ এ প্রত্যাশা করি।
ইসলামকে শান্তি ও কল্যাণের ধর্ম উল্লেখ করে সাংসদ সুজন বলেন, এখানে হিংসা-বিদ্বেষ, হানাহানি, কূপমণ্ডূকতার কোনো স্থান নেই। মানবিক মূল্যবোধ, পারস্পারিক সহাবস্থান, পরমতসহিষ্ণুতা ও সাম্যসহ বিশ্বজনীন কল্যাণকে ইসলাম ধারণ করে। ইসলামের এই সুমহান বার্তা ও আদর্শ সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

ঠাকুরগাঁওয়ে উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে জেলা আওয়ামীঃ রাজনীতিতে বিভক্তি হওয়ার আশঙ্কা

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার সাবেক সফল মেয়র বি এন পি ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন’র শুভেচ্ছা বাণী

আপডেট : ০২:২৪:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক ।।

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঠাকুরগাঁও বাসী সহ দেশবাসী কে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন ঠাকুরগাঁও পৌরসভার সাবেক সফল মেয়র বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বি এন পি ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন আজ এক বাণীতে বলেন, ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে সবাই যাতে ঈদের আনন্দ সমানভাবে উপভোগ করতে পারে, সেজন্য মানবতার মুক্তির দিশারি হিসেবে ইসলামের মর্মার্থ ও অন্তর্নিহিত তাৎপর্য দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ৃক, ভরে উঠুক শান্তি আর সৌহার্দ্যৈ পবিত্র ঈদুল ফিতরে আমার এ প্রত্যাশা।

বাণীতে মির্জা ফয়সল আমীন আরো বলেন, ঈদুল ফিতর মুসলমানদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব। মাসব্যাপী সিয়াম সাধনা ও সংযম পালনের পর অপার খুশি আর আনন্দের বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে আসে পবিত্র ঈদুল ফিতর। এ আনন্দ ছড়িয়ে পড়ে সবার মাঝে, গ্রামগঞ্জে, সারা বাংলায়, সারা বিশ্বে। এদিন সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ এক কাতারে শামিল হন এবং ঈদের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নেন। ঈদ সবার মধ্যে গড়ে তোলে সৌহার্দ্য সম্প্রীতি আর ঐক্যের বন্ধন। ঈদুল ফিতরের শিক্ষা সকলের মাঝে ছড়িয়ে পড়ুক, গড়ে উঠুক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ এ প্রত্যাশা করি।
ইসলামকে শান্তি ও কল্যাণের ধর্ম উল্লেখ করে সাংসদ সুজন বলেন, এখানে হিংসা-বিদ্বেষ, হানাহানি, কূপমণ্ডূকতার কোনো স্থান নেই। মানবিক মূল্যবোধ, পারস্পারিক সহাবস্থান, পরমতসহিষ্ণুতা ও সাম্যসহ বিশ্বজনীন কল্যাণকে ইসলাম ধারণ করে। ইসলামের এই সুমহান বার্তা ও আদর্শ সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে।