ঢাকা ০৬:৫৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নালিশী জমিতে ছবি দিয়ে সাইনবোর্ড, অপসারণ করালেন এমপি সুজন

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে আদালতে মামলা চলা অবস্থায় একটি বাজারের ২৮ শতক জমিতে ঠাকুরগাঁও-২ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মাজহারুল ইসলাম সুজনের ছবি ব্যবহার করে ব্যানার ও সাইনবোর্ড টাঙিয়েছিলেন হামিদুর রহমান নামে এক যুবলীগ নেতা। খবর পেয়ে ছুটে গিয়ে যুবলীগ নেতাকে ডেকে ব্যানার ও সাইনবোর্ড অপসারণ করিয়েছেন ওই সংসদ সদস্য। একইসঙ্গে আদালতের রায় না হওয়া পর্যন্ত দুপক্ষকে দ্বন্দে জড়াতে নিষেধ করেছেন তিনি।

বুধবার দুপুরে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের ধনিরহাট বাজারে এই ঘটনা।

সদ্য নির্বাচিত হওয়া সংসদ সদস্য মাজহারুল ইসলাম সুজন এমন উদ্যোগে প্রশংসায় ভাসছেন।

জানা গেছে, ভানোর ইউনিয়নের ধনিরহাট বাজারের ২৮ শতক জমির বিরোধ নিয়ে ওই এলাকার স্কুল শিক্ষক সাইফুল ইসলাম ও ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য সচিব হামিদুর রহমানের একটি মামলা আদালতে বিচারাধীন। এর মধ্যে যুবলীগ নেতা হামিদুর রহমান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. দবিরুল ইসলাম ও তার বড় ছেলে বর্তমান সংসদ সদস্যর ছবি ব্যবহার করে সাইনবোর্ড ও ব্যানার টাঙিয়েছেন।

স্থানীয়রা বলছেন, আদালতে বিচারাধীন জমি দখল নিতে এমপির ছবির ব্যবহার করেছিলেন ওই যুবলীগ নেতা।

তবে স্থানীয় এমপির কানে যাওয়ার সাথে সাথে ব্যানার ও সাইনবোর্ড অপসারণ করতে নিজেই ছুটে এসেছেন। নির্বাচনের সময় অন্যায়কে প্রশ্রয় না দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে বেশ খুশি ওই এলাকার মানুষ।

অপসারণের পর ব্যানার যুবলীগ নেতা হামিদুর রহমান বলেন, এমপি সাহেব ঘটনাস্থলে এসেছিলেন, নির্দেশনা দেওয়ার সাথে সাথে ব্যানার ও সাইনবোর্ড অপসারণ করে নিয়েছি। তিনি আশ্বস্ত করেছেন জমির প্রকৃত মালিককে জমি ফিরে পেতে সব ধরনের সহযোগিতা করবেন।

জমির মালিক দাবি করা আরেক পক্ষ স্কুল শিক্ষক সাইফুল ইসলাম বলেন, এমপির ছবি ব্যবহার করে দখলের চেষ্টা করেছিল। আমরা বাধা দিলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ও এমপির ছবি ছিড়ে আমাদের মামলায় ফাঁসানোর পরিকল্পনা করা হয়েছিল। তবে এমপি সাহেব এগুলো অপসারণ করে আমাদের চিন্তামুক্ত করেছেন। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে বলেছেন, আদালতের রায় না হওয়া পর্যন্ত দুপক্ষকে দ্বন্দে জড়াতে নিষেধ করেছেন।

ঠাকুরগাঁও-২ আসনের সংসদ সদস্য মাজহারুল ইসলাম সুজন বলেন, বাজারের বিতর্কিত জমিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আমার পিতা সাবেক সংসদ সদস্য এবং আমার ছবি ব্যবহার করে সাইনবোর্ড টাঙানোর বিষয়টি স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আমাকে দুপুরে অবগত করে। আমি সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে এসে সেগুলো অপসারণ করিয়েছি। জমিটি নিয়ে যেহেতু বিরোধ রয়েছে, আদালত এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দিবে।

তিনি আরও বলেন, আমার নাম ও ছবি ব্যবহার করে কেউ অন্যায় করলে আমাকে অবগত করবেন। এটি নির্বাচনের আগেও বলেছিলাম, এখনও বলছি। কোনো অন্যায়কে আমি প্রশ্রয় দেয়নি, আগামীতেও দিবো না।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

ঠাকুরগাঁওয়ে উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে জেলা আওয়ামীঃ রাজনীতিতে বিভক্তি হওয়ার আশঙ্কা

নালিশী জমিতে ছবি দিয়ে সাইনবোর্ড, অপসারণ করালেন এমপি সুজন

আপডেট : ১১:৩৩:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে আদালতে মামলা চলা অবস্থায় একটি বাজারের ২৮ শতক জমিতে ঠাকুরগাঁও-২ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মাজহারুল ইসলাম সুজনের ছবি ব্যবহার করে ব্যানার ও সাইনবোর্ড টাঙিয়েছিলেন হামিদুর রহমান নামে এক যুবলীগ নেতা। খবর পেয়ে ছুটে গিয়ে যুবলীগ নেতাকে ডেকে ব্যানার ও সাইনবোর্ড অপসারণ করিয়েছেন ওই সংসদ সদস্য। একইসঙ্গে আদালতের রায় না হওয়া পর্যন্ত দুপক্ষকে দ্বন্দে জড়াতে নিষেধ করেছেন তিনি।

বুধবার দুপুরে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের ধনিরহাট বাজারে এই ঘটনা।

সদ্য নির্বাচিত হওয়া সংসদ সদস্য মাজহারুল ইসলাম সুজন এমন উদ্যোগে প্রশংসায় ভাসছেন।

জানা গেছে, ভানোর ইউনিয়নের ধনিরহাট বাজারের ২৮ শতক জমির বিরোধ নিয়ে ওই এলাকার স্কুল শিক্ষক সাইফুল ইসলাম ও ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য সচিব হামিদুর রহমানের একটি মামলা আদালতে বিচারাধীন। এর মধ্যে যুবলীগ নেতা হামিদুর রহমান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. দবিরুল ইসলাম ও তার বড় ছেলে বর্তমান সংসদ সদস্যর ছবি ব্যবহার করে সাইনবোর্ড ও ব্যানার টাঙিয়েছেন।

স্থানীয়রা বলছেন, আদালতে বিচারাধীন জমি দখল নিতে এমপির ছবির ব্যবহার করেছিলেন ওই যুবলীগ নেতা।

তবে স্থানীয় এমপির কানে যাওয়ার সাথে সাথে ব্যানার ও সাইনবোর্ড অপসারণ করতে নিজেই ছুটে এসেছেন। নির্বাচনের সময় অন্যায়কে প্রশ্রয় না দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে বেশ খুশি ওই এলাকার মানুষ।

অপসারণের পর ব্যানার যুবলীগ নেতা হামিদুর রহমান বলেন, এমপি সাহেব ঘটনাস্থলে এসেছিলেন, নির্দেশনা দেওয়ার সাথে সাথে ব্যানার ও সাইনবোর্ড অপসারণ করে নিয়েছি। তিনি আশ্বস্ত করেছেন জমির প্রকৃত মালিককে জমি ফিরে পেতে সব ধরনের সহযোগিতা করবেন।

জমির মালিক দাবি করা আরেক পক্ষ স্কুল শিক্ষক সাইফুল ইসলাম বলেন, এমপির ছবি ব্যবহার করে দখলের চেষ্টা করেছিল। আমরা বাধা দিলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ও এমপির ছবি ছিড়ে আমাদের মামলায় ফাঁসানোর পরিকল্পনা করা হয়েছিল। তবে এমপি সাহেব এগুলো অপসারণ করে আমাদের চিন্তামুক্ত করেছেন। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে বলেছেন, আদালতের রায় না হওয়া পর্যন্ত দুপক্ষকে দ্বন্দে জড়াতে নিষেধ করেছেন।

ঠাকুরগাঁও-২ আসনের সংসদ সদস্য মাজহারুল ইসলাম সুজন বলেন, বাজারের বিতর্কিত জমিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আমার পিতা সাবেক সংসদ সদস্য এবং আমার ছবি ব্যবহার করে সাইনবোর্ড টাঙানোর বিষয়টি স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আমাকে দুপুরে অবগত করে। আমি সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে এসে সেগুলো অপসারণ করিয়েছি। জমিটি নিয়ে যেহেতু বিরোধ রয়েছে, আদালত এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দিবে।

তিনি আরও বলেন, আমার নাম ও ছবি ব্যবহার করে কেউ অন্যায় করলে আমাকে অবগত করবেন। এটি নির্বাচনের আগেও বলেছিলাম, এখনও বলছি। কোনো অন্যায়কে আমি প্রশ্রয় দেয়নি, আগামীতেও দিবো না।