ঢাকা ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁও-৩: স্বাধীনতার পর প্রথম নারী এমপি প্রার্থী আশা মনি

নিজস্ব প্রতিবেদক।

স্বাধীনতার পর প্রথমবারের মতো ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে সংসদ সদস্য (এমপি) পদে নারী স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন আশা মনি। এর আগে আসনটিতে আর কোনো নারী এ পদে নির্বাচন করেননি।

অবিবাহিত আশা মনি জেলার রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ ইউনিয়নের গন্ডগ্রাম এলাকার বাসিন্দা। তাঁর বাবা আনারুল ইসলাম পেশায় একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। তিন ভাইবোনের মধ্যে তিনি সবার বড়।

আশা মনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ম্যানেজমেন্টে অনার্স পড়ছেন। বর্তমানে তাঁর বয়স ২৭ বছর। সেই হিসাবে তিনি সারা দেশের মধ্যে কনিষ্ঠ সংসদ সদস্য পদ প্রার্থী।

এর আগে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন আশা মনি। ৪ ডিসেম্বর যাচাই-বাছাইয়ে তাঁর ভোটার সমর্থনে গরমিল থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করেন জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান।

পরে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আগারগাঁও নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পান আশা মনি। আজ সোমবার জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ থেকে ঈগল প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে প্রচারণা শুরু করেন আশা মনি।

তিনি দৈনিক ঝড় কে বলেন, ‘নারী নেতৃত্ব তৈরি করার নিমিত্তে এবং শুধু টাকাওয়ালা আর ব্যবসায়ীরা বাদেও দরিদ্র পরিবার থেকেও নেতৃত্ব দেওয়া সম্ভব।’ তা প্রতিষ্ঠিত করার জন্যই তিনি ভোটে দাঁড়িয়েছেন বলে জানান।

আশা মনি বলেন, ২০২২ সালে জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী আসনে তিনি প্রার্থী হয়েছিলেন। সেখানে সন্তোষজনক ভোটে পরাজিত হন। এখন তিনি সংসদ সদস্য পদে নির্বাচন করছেন।

তিনি বলেন, তিনি সংসদ সদস্য হলে ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে নারীদের অধিকার রক্ষায় কাজ করবেন। কোনো ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে জড়াবেন না। এলাকার উন্নয়নে দিনরাত কাজ করবেন। নিজের বা পরিবারের উন্নয়নের কথা তিনি চিন্তা করবেন না। সব সময় নির্বাচনী এলাকার মানুষের কথাই চিন্তা করবেন।

আশা মনি আরও বলেন, ‘আগেই বলেছি, নারী নেতৃত্ব তৈরির প্রয়াসেই আমার এই নির্বাচন করা।’ জয়ের ব্যাপারে তিনি আশাবাদী।

ঠাকুরগাঁও-৩ (রানীশংকৈল–পীরগঞ্জ) দুটি উপজেলা, দুটি পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়নয় নিয়ে গঠিত সংসদীয় এলাকা। মোট ভোটারের সংখ্যা ৩ লাখ ৪৪ হাজার ৩৫৪।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে মোট চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁরা হলেন জাতীয় পার্টি থেকে লাঙ্গল প্রতীকে হাফিজ উদ্দীন আহম্মদ, বিকল্পধারা বাংলাদেশের কুলা প্রতীকে খলিলুর রহমান, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির হাতুড়ি প্রতীকে গোপাল চন্দ্র রায় এবং ঈগল প্রতীকে আশা মনি স্বতন্ত্র প্রার্থী।

ট্যাগস :
জনপ্রিয়

ঠাকুরগাঁওয়ে ৬শ পিস ইয়াবাসহ ২ মাদক কারবারি গ্রেফতার

ঠাকুরগাঁও-৩: স্বাধীনতার পর প্রথম নারী এমপি প্রার্থী আশা মনি

আপডেট : ০৯:২৮:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক।

স্বাধীনতার পর প্রথমবারের মতো ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে সংসদ সদস্য (এমপি) পদে নারী স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন আশা মনি। এর আগে আসনটিতে আর কোনো নারী এ পদে নির্বাচন করেননি।

অবিবাহিত আশা মনি জেলার রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ ইউনিয়নের গন্ডগ্রাম এলাকার বাসিন্দা। তাঁর বাবা আনারুল ইসলাম পেশায় একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। তিন ভাইবোনের মধ্যে তিনি সবার বড়।

আশা মনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ম্যানেজমেন্টে অনার্স পড়ছেন। বর্তমানে তাঁর বয়স ২৭ বছর। সেই হিসাবে তিনি সারা দেশের মধ্যে কনিষ্ঠ সংসদ সদস্য পদ প্রার্থী।

এর আগে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন আশা মনি। ৪ ডিসেম্বর যাচাই-বাছাইয়ে তাঁর ভোটার সমর্থনে গরমিল থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করেন জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান।

পরে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আগারগাঁও নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পান আশা মনি। আজ সোমবার জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ থেকে ঈগল প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে প্রচারণা শুরু করেন আশা মনি।

তিনি দৈনিক ঝড় কে বলেন, ‘নারী নেতৃত্ব তৈরি করার নিমিত্তে এবং শুধু টাকাওয়ালা আর ব্যবসায়ীরা বাদেও দরিদ্র পরিবার থেকেও নেতৃত্ব দেওয়া সম্ভব।’ তা প্রতিষ্ঠিত করার জন্যই তিনি ভোটে দাঁড়িয়েছেন বলে জানান।

আশা মনি বলেন, ২০২২ সালে জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী আসনে তিনি প্রার্থী হয়েছিলেন। সেখানে সন্তোষজনক ভোটে পরাজিত হন। এখন তিনি সংসদ সদস্য পদে নির্বাচন করছেন।

তিনি বলেন, তিনি সংসদ সদস্য হলে ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে নারীদের অধিকার রক্ষায় কাজ করবেন। কোনো ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে জড়াবেন না। এলাকার উন্নয়নে দিনরাত কাজ করবেন। নিজের বা পরিবারের উন্নয়নের কথা তিনি চিন্তা করবেন না। সব সময় নির্বাচনী এলাকার মানুষের কথাই চিন্তা করবেন।

আশা মনি আরও বলেন, ‘আগেই বলেছি, নারী নেতৃত্ব তৈরির প্রয়াসেই আমার এই নির্বাচন করা।’ জয়ের ব্যাপারে তিনি আশাবাদী।

ঠাকুরগাঁও-৩ (রানীশংকৈল–পীরগঞ্জ) দুটি উপজেলা, দুটি পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়নয় নিয়ে গঠিত সংসদীয় এলাকা। মোট ভোটারের সংখ্যা ৩ লাখ ৪৪ হাজার ৩৫৪।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে মোট চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁরা হলেন জাতীয় পার্টি থেকে লাঙ্গল প্রতীকে হাফিজ উদ্দীন আহম্মদ, বিকল্পধারা বাংলাদেশের কুলা প্রতীকে খলিলুর রহমান, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির হাতুড়ি প্রতীকে গোপাল চন্দ্র রায় এবং ঈগল প্রতীকে আশা মনি স্বতন্ত্র প্রার্থী।